চোখ বাঁধেন কেন বলতেই তারা চোখে মুখে কিল ঘুষি মারতে থাকে’

চোখ বাঁধেন কেন বলতেই তারা চোখে মুখে কিল ঘুষি মারতে থাকে’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক ব্যবসায়ীকে দিনদুপুরে জোরপূর্বক গাড়িতে তুলে মারধর করে তার সঙ্গে থাকা ২০ লাখ টাকা ও তার ফোন হাতিয়ে নিয়েছে একটি চক্র। শনিবার বেলা সাড়ে তিনটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাবের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি অজ্ঞাতনামা মামলা করেছেন ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী মো. মহিউদ্দিন। তিনি ঢাকা নিউমার্কেটে রায়হান জুয়েলার্স নামে একটি দোকানের মালিক।

মহিউদ্দিন সমকালকে বলেন, গত ৩ সেপ্টেম্বর দুপুর ২ টার সময় আমি বাসা থেকে তাঁতী বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হই এবং তাঁতী বাজার ২১নং মার্কেটে যাই। কাজ শেষে তাঁতীবাজার মোড় হইতে ভাড়াকৃত মোটরসাইকেলে নিউমার্কেটের উদ্দেশ্যে হলে বিকাল ৩ টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাবের গেইট হতে ২০ গজ পূর্বে দিকে পাকা রাস্তার উপর পৌঁছামাত্র পেছন দিক থেকে ‘সেনাবাহিনী’ লেখা জলপাই রংয়ের পাজেরো গাড়ী এসে আমার মোটরসাইকেল এর সামনে দাঁড়িয়ে যায় এবং গাড়ি থেকে ৩ জন নেমে আমাকে ঘেরাও করে আমাকে মোটরসাইকেল থেকে নামতে বলে।

তিনি বলেন, প্রশাসনের লোক মনে করে মোটরসাইকেল থেকে নামার সঙ্গে সঙ্গে আমার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে তিনজনেই ঝাপটে ধরে গাড়িতে তুলে গামছা দিয়ে আমার চোখ বেঁধে ফেলে। চোখ বাঁধার আগে আমি গাড়ীতে ড্রাইভার ও পিছনে একজনকে বসা দেখতে পাই। চোখ বাঁধেন কেন ভাই বলতেই তারা আমার চোখে মুখে কিল ঘুষি মারতে থাকে। কোন কথা জিজ্ঞাসা করলেই তারা আমাকে মারধর করে।

তিনি আরও বলেন, কিছুদুর যাওয়ার পর তারা আমার হাত দুটি পিছনে নিয়ে হ্যান্ডকাপ পরায় এবং আমার মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলে। আমি তখন বুঝতে পারি, আমি ডাকাতদের পাল্লায় পড়েছি। এ সময় তারা আমার দুই পায়ে রাবার দ্বারা বাধা চার লক্ষ টাকা, কোমরে কাপড়ের বেল্টে রক্ষিত ১৬ লক্ষ টাকাসহ বিশ লক্ষ টাকা এবং আমার ব্যবহৃত অপ্পো মোবাইল সেট হাতিয়ে নিয়ে আমাকে হাত, পা, চোখ বাধা অবস্থায় কেরানীগঞ্জ আব্দুল্লাহপুর রাস্তার পাশে ফেলে চলে যায়।

মহিউদ্দিন বলেন, আমার গোঙানির শব্দে আশেপাশের লোকজন আমাকে উদ্ধার করে। লোকজনের সহায়তায় আমি তাদের ফোন দিয়ে আমার ভাই কবির হোসেনকে ঘটনার বিস্তারিত জানাই।

ডাকাতদের বর্ণনায় তিনি বলেন, ডাকাতদের বয়স অনুমান ২৮-৩২ বছরের মধ্যে হবে। উচ্চতা অনুমান ৫ ফুট ০৮ ইঞ্চি। গায়ের রং শ্যামলা হ্যান্ডসাম, মাথার চুল ছোট ছোট, পড়নে প্যান্ট, হাফহাতা গেঞ্জি এবং হাফহাতা কোটি পরিহিত ছিল। তারা শুদ্ধ ভাষায় কথা বলে এবং আমি তাদের দেখলে চিনতে পারব।

এ ঘটনায় শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মওদূত হাওলাদার বলেন, নিউমার্কেটের এক ব্যবসায়ী আমাদের নিকট অভিযোগ করেছেন। আমরা পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেব।


Leave a Reply

Your email address will not be published.